গহনার যত বৈচিত্র্য

একটা সময় ছিল মেয়েরা কেবল সোনার গহনাই পরতো। কিন্তু সময়ের আবর্তনে সাজগোজের ধরন বদলেছে। তাই বিয়ে মানেই কনে গৎবাধা সোনার গহনা পরবে, তা নয়। বিয়ের কনে এখন কুন্দন, মিনাকারী, মুক্তা কিংবা পাথর সেটিং রুপা বা সোনার পানিতে ধোয়া রুপা গহনা পরে শাড়ি কিংবা ল্যাহেঙ্গার সাথে। গায়ে হলুদে ফুলের গহনাই চলে সবচেয়ে বেশি। তারপরও বৈচিত্র আনতে কৃত্রিম ফুল, কাঠ, বিডসের গহনার চলও এসেছে।

বিয়েবাড়িতে নিমন্ত্রিত অতিথিরাও আজকাল শুধু সোনার গহনা পরেন না। পোশাকের সাথে মিলিয়ে মেটাল, পাথরের গহনা বেছে নেন। কেউ বিয়ে কিংবা অন্যকোন অনুষ্ঠানে গহনা উপহার দিতে চাইলেও অনেকেই সোনা ছেড়ে এখন উপহার দিচ্ছেন রূপা, মেটাল বা পাথের সেট করা গহনা

কিছুদিন আগেও গহনা পরার চল বেশি ছিল বিবাহিত ও একটু বয়সী মেয়েদের মধ্যে। এখন সব বয়সী মেয়েই গহনা পরছে। কেবল শাড়ির সাথেই নয়, প্যান্ট টপ কিংবা সালোয়ার কামিজের সাথেও চলে নানারকম গহনা। গহনার নকশাও বদলেছে অনেক। ম্যাট, অক্সি, কপার কালারের চল এখন বেশি। রকমারি পাথর বসানো নতুন বাহারি গহনা এসেছে। রুপায় মিনা করা গহনা, মুক্তা, জাংক জুয়েলারি এখন চলছে বেশি। যে কোন উৎসবে মেয়েরা নিজেদের এমন সব গহনায় সাজায়। এছাড়া এখন হাতে আঁকা গহনাও চলছে বেশ। হাতে আঁকার পাশাপাশি এতে যুক্ত হচ্ছে রুদ্রাক্ষ, পুঁতি, কড়ি, হাড়। ফলে এতে আলাদা আবেদন তৈরি হচ্ছে। আবার টাইডাই করা কাপড় কি গ্রামীন চেক পেঁচিয়ে তৈরি হচ্ছে ইউনিক চুড়ি যা মেয়েরা পরছে পোশাকের সাথে মিলিয়ে।

গহনার যত বৈচিত্র্য

এখন নকশাদার কাজ চলছে বেশি। ত্রিভুজ কি গোলাকারের পাশাপাশি আছে মুখের অবয়ব, প্রজাপতি। আবার জমকালো পোশাকের জন্য আছে ধাতুর দুল থেকে গলার মালা। পুঁতি বিডসের গহনাও আছে হরেক রকম। কয়েক লহরির মালা রয়েছে এবার পছন্দের শীর্ষে।

কানপাশা, দুল,মাকড়ি, চুড়ি, ব্রেসলেট, বালা,পায়েল, বাজু, হাতের আংটি, পায়ের আংটি, চুলের কাটাসহ আরও নানা ধরনের গয়না পাওয়া যাচ্ছে। এছাড়া পাওয়া যাচ্ছে ইয়োকের গয়না, মাটির লকেটের সাথে কাপড়ের মালা কিংবা কড়ির সংমিশ্রন। হাতে আজকাল তরুণীরা বালা বা সিঙ্গেল চুড়ি ও ব্রেসলেট পরতে পছন্দ করে। চুড়ি বা ব্রেসলেটেও কড়ি, বিডস্, সুতা, হাড়, পুঁতির ব্যবহার লক্ষ্য করা যায়। এখন আফগানি দুল ও নেপালি মালার চাহিদা বেশি সাথে বাহারি নথ ও বাজুবন্ধ।



আরো পড়ুন



দেশি ফ্যাশন হাউজগুলো ক্রেতার পছন্দমত বিভিন্ন ডিজাইনের ধাতু কিংবা সুতা, কাপড়, পুঁতি ও কাঠের গহনা বানায়। রুপার ছোট ঝুমকা, কানের দুল ও রুপার উপর পলা বেশি পছন্দ করেন ক্রেতারা। সাথে কাঠ, সুতা, পুঁতি কিংবা অন্যান্য ধাতু তো আছেই।

ফ্যাশন হাউজ বিশ্বরঙ, অঞ্জনস, কে ক্র্যাফট, বিবিয়ানা, কারুকর্ম তৈরি করেছে হরেক রকমের গয়না। তারা বলছেন, এখন চোকার ও লম্বা মালার চাহিদা বেশি। কাঠ কিংবা ধাতুর চোকার ক্রেতারা পছন্দ করছে।

অপরদিকে ব্যস্ততা, যানজটের ঝক্কি এড়াতে অনলাইনে কেনাকাটাকেই প্রাধান্য দিচ্ছেন অনেকে। অনলাইনে দেশি, ইন্ডিয়ান, নেপালী গহনা বিক্রি হচ্ছে। অনেকে ইন্ডিয়ান কিংবা নেপালী মেটেরিয়াল সংগ্রহ করে নিজেই নানারকম গয়না বানিয়ে সন্তুষ্ট করছেন ক্রেতাদের। তবে হাতে তৈরি গহনার চাহিদা বাড়ছে। বিশেষ করে কাঠের ওপর হাতে আঁকা চিত্রপটের গহনা বেশ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে।

জনপ্রিয় অনলাইন গয়নার পেজ কারুকর্ম এর স্বত্বাধিকারী মম বলেন, আজকালকার মেয়েরা যেকোনো পোশাকের সাথেই গহনা পছন্দ করে। যেকোন পোশাকের সাথেই কাঠের বিডস্, ফেল্ট ফেব্রিক, মেটালের তৈরি গহনা পরে। এই মেটেরিয়ালগুলো সব বাংলাদেশে পাওয়া যায়না। ফলে ইন্ডিয়া, চায়না, নেপাল থেকে আনাতে হয়। কাজেই দাম একটু বেশিই হয়। তারপরও গহনায় ক্রেতাদের আগ্রহ বাড়ছে।

Leave a Reply