কম খরচে বিয়ের গহনা

বাংলাদেশের বিয়েতে যে সমস্ত আয়োজনের কারণে খরচ অনেক বেড়ে যায়, তার মধ্যে গহনা অন্যতম। এমনও বিয়ে আছে যেখানে শুধুমাত্র গহনার পেছনেই কয়েক লাখ টাকা খরচ হয়ে যায়। কিন্তু এত খরচ সামাল দিয়ে বিয়ের আয়োজন সম্পন্ন করা অনেক কষ্টসাধ্য। বিয়ের অনুষ্ঠান আয়োজন, অন্যান্য শপিং, হানিমুন ইত্যাদি সহ খরচের বহরটা বেশ বড়ই বলা চলে। তাই যতটা সম্ভব খরচ কমাতে পারলে কনে এবং বর তাদের নতুন জীবন একটু সুস্থিরভাবে শুরু করতে পারেন। তাই গহনার খরচ কমানো নিয়ে karukormo – কারুকর্ম এর আজকের এই পোস্ট।

শুরুতেই বলে নেয়া ভালো, কিভাবে দামাদামি করবেন, অথবা কোথায় কম খরচে গহনা কিনতে পারবেন এ ধরনের পরামর্শ এখানে দেয়া হবে না। কেননা, গহনার দাম মোটামুটি নির্দিষ্ট করাই থাকে। যেখান থেকেই কিনুন না কেন, সোনার গহনার দাম সবসময়ই একরকম হবে, বাজারে সোনার দামের ওপর সামঞ্জস্য রেখে। তাই কিছু কৌশল নিয়ে মূলত আজকের আলোচনা।

গহনা ভাড়া করুন

বিয়ের অনুষ্ঠানে কনেরা অনেক ভারি গহনা পড়ে থাকেন। কিন্তু এই ভারি গহনাগুলো ভবিষ্যৎ জীবনে তেমনে একটা দরকার হয় না বললেই চলে। বেশিরভাগ সময়েই এইসব গহনার স্থান হয় আলমারির ভেতরে, অথবা সিন্দুকে। মূলত আর্থিক অবস্থা হঠাত খারাপ হয়ে গেলে এই গহনাগুলো বিক্রি একটি সমাধান হতে পারে মনে করেই এভাবে জমিয়ে রাখা হয়। আপনার যদি এ ধরনের ইচ্ছা না থাকে, তাহলে এত গহনা কেনার কোন দরকার নেই। বরঞ্চ শুধুমাত্র বিয়ের দিনের জন্য না কিনে বিয়ের গহনা ভাড়া করুন। অনেক জায়গায়ই বিয়ের গহনা ভাড়া পাওয়া যায়। কম খরচে গহনা ভাড়া করতে পারেন বিয়ে-বাজার থেকে। বিয়েতে আসা কেউ তো আর জানছে না গহনা কেনা নাকি ভাড়া করা। তাই এই উপায় অবলম্বন করতেই পারেন।



আরো পড়ুন



প্লেটেড গহনা কিনুন

যদি আপনার সোনার গহনা কিনে ভবিষ্যতের জন্য আলাদা করে সঞ্চয়ের পরিকল্পনা না থাকে, তাহলে প্লেটেড গহনা কেনা বেশ ভালো একটি খরচ কমানোর উপায় হতে পারে। আজকাল অনেক কম দামে গোল্ড অথবা সিলভার প্লেটেড গহনা পাওয়া যায়। সবথেকে বড় কথা হচ্ছে, প্লেটেড গহনা দেখে খালি চোখে বোঝায় যায়না যে তা আসল সোনার গহনা নয়। তাই বিয়ের কনের সাজে বিন্দুমাত্র ভাটা পড়বে না প্লেটেড গহনা পড়লে। বিভিন্ন দামের এবং ডিজাইনের প্লেটেড গহনা অনেক জুয়েলারী স্টোরেই পাবেন। তবে অনলাইনে কিনতে চাইলে karukormo – কারুকর্ম এ গহনার কালেকশন দেখতে পারেন।প্লেটেড গহনার একটি সমস্যা হচ্ছে, রঙ উঠে যাওয়ার সম্ভাবনা আছে। তবে আপনি চাইলে নতুন করে রঙ করিয়ে নিতে পারবেন। গহনা এতে করে একদম নতুনের মত দেখাবে।

পুরনো গহনা ব্যবহার করুন

যেহেতু বিয়েতে অনেক গহনা দরকার হয়, এবং কনের গহনা দুই পরিবার থেকেই আসে, তাই একটি ভালো উপায় হতে পারে পুরনো গহনা ব্যবহার করার। অনেক সময়েই আমাদের সমাজের মা, অথবা শাশুড়িরা নিজেদের বিয়ের পুরনো গহনা তাদের মেয়ে অথবা ছেলের স্ত্রী-কে দেয়ার জন্য সংরক্ষণ করে রাখেন। দেখে নিন যে আপনার পরিবারেও মুরব্বী মহিলা যারা আছেন, তারাও এভাবে আগের গহনা সংরক্ষণ করে রেখেছেন কি’না। যদি তা’ই হয়ে থাকে, তাহলে খরচ অনেক কমে যাবে। সব গহনাই যে পুরনো হবে তা কিন্তু নয়। তবে পুরনো এবং নতুন মিলিয়ে বেশ ভালো গহনার সেট তৈরী করে নেয়া সম্ভব।

Leave a Reply